CV Full Form in Bengali – CV র পুরো নাম কি

CV Full Form in Bengali – CV র পুরো নাম কি :- বর্তমানে আমরা কোনো কাজের জন্য আবেদন করি কিংবা স্কুল, কলেজ Faculty, Internship, Fellowship এর জন্য আবেদন করে থাকি এর জন্য সর্ব প্রথম আমাদের একটি CV র প্রয়োজন। সিভিতে আমরা আমাদের সমস্ত তথ্য প্রয়োজনীয় হিসাবে রাখি। আমরা কাজের জন্য একটি CV দিয়ে শুরু করি, যা আমাদের চাকরি পেতে সহায়তা করে। বন্ধুরা, এই Article এ CV Full Form in Bengali, CV র পুরো নাম ও CV বলতে কী বোঝায় সে সম্পর্কিত তথ্য বিস্তারিতভাবে দেওয়া হচ্ছে.

CV Full Form in Bengali – CV র পুরো নাম

CV Full Form in Bengali
CV Full Form in Bengali

CV র Full Form হলো – Curriculum Vitae এবং বাংলাতে সিভি CV কে – জীবন বৃত্তান্ত বা একাডেমিক রেকর্ড এবং কাজের অভিজ্ঞতা বলা হয়। CV তে, আপনি আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, কাজের অভিজ্ঞতা এবং আপনার ব্যাক্তিগত বিবরণ সম্পর্কে লিখেন। CV তৈরি করার সময় কেবল সাধারণ শব্দ ব্যবহার করুন এবং CV তে আপনি কেবল সেগুলি লিখুন, আপনার CV র Format টি সহজ রাখুন.

CV মানে কি?

CV সর্বদা কাজ অনুযায়ী To the Point হিসেবে তৈরী করুন, যা নিয়োগকারীকে আপনার CV বুঝতে সাহায্য করে। সংস্থাগুলির এতটা সময় নেই যে তারা আপনার বিবরণ জানার জন্য এবং তারা আপনার বিবরণ জানার আগ্রহী নয়, সংস্থাগুলি আপনার দক্ষতার সম্পর্কে বেশি আগ্রহ থাকে। CV Form এর মাধ্যমে সংস্থায় কর্মচারীদের নির্বাচন করা সহজ। CV র সহায়তায়, সংস্থাটি জানে যে কোন ব্যক্তি Interview তে আসছে এবং আপনার সেই CV কম পৃষ্ঠার হওয়া উচিত যাতে আপনার Interview এর উপর ভাল প্রভাব পড়ে.

CV কিভাবে বানাবো – CV Format

CV তৈরি করা খুব সহজ, আসুন জেনে নেওয়া যাক কীভাবে CV Format তৈরি করা হয়। CV তৈরী করার সময় আপনাকে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যত্ন নিতে হবে, যাতে সামনের ব্যক্তিটি আপনার CV বুঝতে পারে.

1. নাম ও যোগাযোগের ঠিকানা

সিভির প্রথম অংশে পুরো নাম লিখতে হবে। কোনোভাবেই ডাকনাম বা ছদ্মনাম লেখা যাবে না। মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক বা বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদপত্রে যে নাম লেখা আছে তা-ই লিখতে হবে। নামের আগে মিস্টার বা মিসেস ব্যবহার করা যাবে না।

ঠিকানা লেখার ক্ষেত্রে চিঠিতে যোগাযোগ করা যায়, এমন ঠিকানা স্পষ্ট কিন্তু সংক্ষিপ্ত আকারে লিখতে হবে। যোগাযোগের জন্য দিতে হবে মুঠোফোন নম্বর। অপ্রয়োজনে ২-৩টি ফোন নম্বর লেখা যাবে না। আর বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে ই-মেইল ঠিকানার ক্ষেত্রে। iamgreat@gmail. com বা sweetdreams@ymail. com—এ ধরনের হাস্যকর ই-মেইল ঠিকানা ব্যবহার করা যাবে না। নিজের নামের সঙ্গে মেলে এমন সংক্ষিপ্ত ই-মেইল ঠিকানা তৈরি করে সিভিতে ব্যবহার করতে হবে।

2. পেশাগত লক্ষ্য

ক্যারিয়ারের উদ্দেশ্যটিতে প্রথমে আপনাকে আপনার উদ্দেশ্য সম্পর্কে লিখতে হবে এবং উদ্দেশ্য সম্পর্কে সর্বদা ইতিবাচক লেখা হয়। এটি কাজ অনুযায়ীও লিখেছেন.

3. শিক্ষাগত যোগ্যতা

এখানে আপনাকে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য দিতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, যারা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে উচ্চতর শিক্ষাগত যোগ্যতা পেয়েছেন তাদের সবাইকে বোর্ডের কোন বোর্ডে এবং কোন বোর্ড থেকে আপনি শিক্ষাগত যোগ্যতা পেয়েছেন তাদের সম্পর্কে তাদেরকে দেখাতে হবে.

4. কর্মদক্ষতা

এখানে আপনাকে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা, আপনি কত দিন ধরে কাজ করছেন এবং কোন সংস্থায় আপনি কাজ করছেন সে সম্পর্কে আপনাকে বলতে হবে.

5. অন্যান্য দক্ষতা

এখানে আপনাকে আপনার অন্যান্য দক্ষতা সম্পর্কে লিখতে হবে, যেন আপনি কোনও ভিন্ন কোর্স শিখেয়েছেন, এটির Heading এ লিখতে হবে.

6. অভ্যাস

এই শিরোনামে, আপনাকে নিজের পছন্দ সম্পর্কে লিখতে হবে, যেমন আপনি প্রতিদিন সবচেয়ে বেশি করেন, তারপরে এটিও উল্লেখ করুন.

7. ব্যক্তিগত প্রোফাইল

এই শিরোনামে আপনাকে নিজের বিবরণ লিখতে হবে যেমন নাম, ঠিকানা, পিতার নাম, জন্ম তারিখ, দাম্পত্য অবস্থা, জাতীয়তা, লিঙ্গ, ধর্ম এবং ভাষা ব্যক্তিগত প্রোফাইলে.

8. CV তে ছবি যুক্ত করা

যে ছবিতে আপনার চেহারা বোঝা যায় এমন যেকোনো ছবি সিভিতে ব্যবহার করবেন। ছবি অবশ্যই সদ্য তোলা হতে হবে। ছবি চশমা ছাড়া পরিপাটি পোশাকে এবং চুল গুছানো অবস্থায় তুলবেন। কারণ ভালো ছবি আনার উত্তম মন-মানুষিকতার পরিচয় বহন করে.

9. অঙ্গীকারনামা

CV তে যুক্ত আপনার সব তথ্য সঠিক ও নির্ভুল তা লিখতে হবে। লেখার নিচে আপনার স্পষ্ট স্বাক্ষর থাকতে হবে। চাকরিদাতা আপনার তথ্য যাচাই করার আইনগত অধিকার রাখেন, তাই কোনো ভুল তথ্য দেবেন না.

10. স্বাক্ষর ও তারিখ

উপরের সবগুলো ধাপ ঠিকমত ফিলআপ করলে আপনার একটি পরিপূর্ণ সিভি রেডি হয়ে যাবে।সবশেষে নিজের নামের ওপরে একটি Signature (স্বাক্ষর) করে তারিখ বসিয়ে দিলেই আপনার সিভি লেখা কমপ্লিট হবে.

CV তে কী কী জিনিস লেখা উচিত নয়

এমন অনেকগুলি বিষয় রয়েছে যা CV তে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত নয়, যেমন আপনার ছবি, আপনার বেতন (যা আপনি আগের চাকরিতে পেয়েছেন), আপনার পেশাদার যোগাযোগের বিশদ এবং আপনার আগের চাকরি ছেড়ে যাওয়ার কারণ ইত্যাদি.

আপনার সিভি CV তে আপনার পারিবারিক পটভূমি, পরিবারের সদস্যদের বিশদ ইত্যাদি লেখা উচিত নয়.

মনে রাখা জরুরি

অনেকেই অন্যের জীবনবৃত্তান্ত প্রায় হুবহু অনুকরণ করে নিজের সিভি তৈরি করেন। এটা একেবারেই ঠিক নয়। চাকরিদাতারা কিন্তু CV তে চোখ বুলিয়েই ব্যাপারটা বুঝতে পারেন। অন্য কাউকে দিয়ে সিভি তৈরি করালেও সেটা ধরা পড়ে যায়। যে নিজের CV নিজে তৈরি করতে পারে না, একজন চাকরিদাতা কোন ভরসায় তাঁকে দায়িত্বশীল পদে নিয়োগ দেবেন? তাই জীবনের প্রথম সিভি নিজেকেই তৈরি করতে হবে। ইন্টারনেট ঘেঁটে দারুণ কিছু সিভির নমুনা পাওয়া যাবে। সেগুলো দেখে একটা ধারণা নিতে পারেন। তারপর নিজের সিভি নিজেই লিখুন.

Internet এ CV তৈরী করবেন কিভাবে?

বর্তমানে Computer বা Smartphone আপনি খুবই সহজে নিজের CV তৈরী করে নিতে পারেন। তার নিচের কাজ আপনার সহায়ক হবে –

1. MS Word এ CV লিখার নিয়ম

যাদের Computer বা Laptop আছে তারা সবাই মোটামোটি MS Word সম্পর্কে Basic ধারনা রাখে। তাছাড়া CV ইংরেজিতে লেখা হয়, Type করার ক্ষেত্রেও কোন জঠিলতা নেই। আপনার যদি কম্পিউটার না থাকে তাহলে যেকোন Cyber ক্যাফেতে কিংবা আপনার বন্ধু বান্ধবের কম্পিউটারে অল্প সময়ে CV তৈরি করে নিতে পারবেন.

2. Online থেকে CV তৈরির নিয়ম

Online এ হাজার হাজার Website আছে যারা ফ্রিতে Professional ডিজাইনের CV তৈরি করার সুযোগ দিচ্ছে। আপনি যদি একটি স্টাইলিস্ট CV চান এ ক্ষেত্রে হয় একজন Expert এর সাহায্য নিতে হবে অন্যথায় Online হতে CV তৈরি করে নিতে হবে। কারণ Online এ CV তৈরি করার জন্য কোন ধরনের ডিজাইন করা প্রয়োজন। আপনি শুধুমাত্র আপনার পছন্দমত যেকোন ডিজাইন Choice করে সকল তথ্য সংযোজন করে দিলেই Automatic সিভি তৈরি হয়ে যাবে.

আপনাদের সুবিধার্তে আমি কয়েকটি CV Maker ওয়েবসাইটের লিংক শেয়ার করে দিচ্ছি। উক্ত CV Maker ওয়েবসাইট হতে অল্প সময়ে একটি আকর্ষণীয় সিভি তৈরি করে নিতে সক্ষম হবেন.

• Resumonk
• Visual CV
• Resume.com
• Kick Resume
• Resume Help

উপরের প্রত্যেকটি ওয়েবসাইট থেকে ফ্রিতে সিভি তৈরি করে নেওয়া যায়। তবে কিছু সিভি রয়েছে প্রিমিয়াম। আপনার চাকরির সিভি তৈরি করার যাবতীয় ডিজাইন উপরের সবগুলোতে পেয়ে যাবেন। সে জন্য প্রিমিয়াম ডিজাইনের প্রয়োজন হবে না.

3. Mobile দিয়ে CV তৈরি করার উপায়

আপনার যদি Computer না থাকে বা কম্পিউটার ব্যবহার করতে না চান তাহলে আপনার হাতে  থাকা Smartphone দিয়ে একটি পরিপূর্ণ CV তৈরি করতে পারবেন। এখন এন্ড্রয়েড মোবাইলের অনেক CV Maker App রয়েছে যেগুলো দিয়ে সহজে সিভি তৈরি করা সম্ভব হয়। নিচের যেকোন এন্ড্রয়েড এ্যাপ দিয়ে আপনার পছন্দমত সিভি তৈরি করতে পারবেন.

• Aristoz Resume Builder Free
• CV Engineer
• Free Resume Builder
• LinkedIn
• Resumaker

উপরের প্রত্যেকটি এন্ড্রয়েড এ্যাপ এর গুগল প্লে-স্টোর ডাউনলোড লিংক দেওয়া আছে। আপনার এন্ড্রয়েড ফোন হতে লিংকে ক্লিক করে সরাসরি গুগল প্লে-স্টোর হতে ডাউনলোড করে মোবাইলে ইনস্টল করে নিতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে সিভি তৈরি করার স্টেপগুলো আপনারা নিজে বুঝতে পারবেন। কারণ মোবাইল দিয়ে সিভি তৈরি করার সকল অপশন মোবাইলে এ্যাপে অটোমেটিক শো করবে। আপনি শুধুমাত্র তাদের নির্দেশনা মেনে প্রয়োজনীয় তথ্য সংযুক্ত করলেই আপনার সিভি তৈরি হয়ে যাবে.

CV কিভাবে Submit করবেন?

আপনি চাকরির জন্য সিভি তৈরি করুন কিংবা অন্য যেকোন প্রয়োজনে সিভি তৈরি করুন না কেন সিভি তৈরি করার পর অবশ্যই আপনাকে সেই সিভি সাবমিট করতে হবে। সিভি সাবমিট করার ক্ষেত্রে বর্তমানে দুই ধরনের সুযোগ রয়েছে। একটি হচ্ছে পোস্ট অফিস অথবা কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে সিভি সাবমিট করতে হয় এবং অন্যটি হচ্ছে ইমেইলের মাধ্যমে সিভি সাবমিট করতে হয়।

আপনি যেভাবে সিভি সাবমিট করার উদ্দেশ্যে সিভি তৈরি করুন না কেন একটি পূর্ণাঙ্গ সিভি তৈরি করার পর সেটি অবশ্যই Doc ফরমেটে সেভ বা ডাউনলোড করে নিবেন। অধিকাংশ লোক একটি কমন ভূল করে থাকে যে, অনলাইনে সিভি তৈরি করার পর PDF ফরমেটে সিভি ডাউনলোড করে। যার ফলে সিভিতে কোন ভুল থাকলে সেটি সংশোধন করা সম্ভব হয় না। সে জন্য ভবিষ্যতে কাজে লাগানোর জন্য কিংবা পুনরায় অন্য চাকরিতে আবেদন করার জন্য সিভি তৈরি করার পর অবশ্যই MS Word কিংবা যেকোন এ্যাডিটএবল ফরমেটে ডাউনলোড করে নিবে।

E-mail এ CV Submit

ইমেইলে সিভি সাবমিট করার ক্ষেত্রে আপনার সিভিটি অবশ্যই প্রথমে PDF ফরমেটে সেভ করে নিবেন। কারণ আপনি যদি Doc ফরমেটে সিভি সাবমিট করেন তাহলে সেটি যেকোন কারনে অথবা চাকরি দাতাদের ভুলের কারনে আপনার সিভি নষ্ট বা পরিবর্তন হতে পারে। এ ক্ষেত্রে PDF ফরমেটে ইমেইলে সিভি পাঠালে আপনার সিভি পরিবর্তন হওয়ার কোন সুযোগ থাকে না।

Post Office এর মাধ্যমে CV Submit

পোস্ট অফিস, কুরিয়ার সার্ভিস অথবা সরাসরি সিভি সাবমিট করার ক্ষেত্রে প্রথমে আপনার সিভিটি A4 সাইজের পেপারে প্রিন্ট করে নিবেন। সম্ভব হলে কালার প্রিন্টারে প্রিন্ট করে নিবেন। তবে কালার প্রিন্ট করতে না পারলে কোন সমস্যা নেই।

তারপর প্রিন্ট করা সিভিতে আপনার স্বাক্ষর করবেন। স্বাক্ষর করার পর একটি খামের বাম পাশে আপনার সিভিতে প্রদত্ত ঠিকানা ও ডান পাশে যে ঠিকানায় পাঠাতে চান সেই ঠিকানা স্পষ্ঠভাবে লিখে নিবেন। সবশেষে আপনার সিভিটি খামের ভিতরে প্রবেশ করিয়ে পোস্ট অফিসে অথবা কুরিয়ার সার্ভিসে দিয়ে আসবেন। সিভি পাঠানোর কিছুদিন পর আপনার স্থানীয় ঠিকানার পোস্ট অফিসে খবর রাখবেন যে, আপনার নামে কোন চিঠিপত্র এসেছে কি না? অথবা আপনার এলাকার পোস্ট মাষ্টারকে আগে থেকে বিষয়টি জানিয়ে রাখবেন। তাহলে আপনার ইন্টারভিউ এর চিঠি আসা মাত্র সহজে হাতে পেয়ে যাবেন.

আমাদের শেষ কথা

তাই বন্ধুরা, আমি আশা করি আপনি অবশ্যই একটি Article পছন্দ করেছেন (CV Full Form in Bengali – CV র পুরো নাম কি)। আমি সর্বদা এই কামনা করি যে আপনি সর্বদা সঠিক তথ্য পান। এই পোস্টটি সম্পর্কে আপনার যদি কোনও সন্দেহ থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই নীচে মন্তব্য করে আমাদের জানান। শেষ অবধি, যদি আপনি Article পছন্দ করেন (CV Full Form in Bengali), তবে অবশ্যই Article টি সমস্ত Social Media Platforms এবং আপনার বন্ধুদের সাথে Share করুন।

Leave a Comment