বিছুটি পাতার উপকারিতা, ব্যবহার এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া – Nettle Benefits, Uses and Side Effects in Bengali

Spread the love

বিছুটি পাতার উপকারিতা, ব্যবহার এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া – Nettle Benefits, Uses and Side Effects in Bengali : বন্ধুরা বিছুটি পাতা নামটি আমাদের সবার কাছেই চেনা ও জানা একটি শব্দ।বিছুটি কে উত্তর বঙ্গের লোকেরা ছোতরা পাতার গাছ/ছোতরা গাছ/চুলচুইল্লাগাছ বলে ডাকে। তবে এর শুদ্ধ নাম বিছুটি গাছ। এটি এমন একপ্রকার উদ্ভিদ যার পাতা/রস/পাতার গুড়ো শরীরে লাগলে শরীর চুলকানি শুরু হয়.তাহলে বুঝতেই পারছেন যতটা এই পাতার পার্শপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানি তার তুলনায় এর  যথাযথ ব্যবহার কিংবা উপকারিতার বিষয়েই আমরা কিছুই জানিনা। তাই আজ জেনে নেওয়া যাক  বিছুটি পাতার নানান উপকারিতা গুলি.

বিচুটি হল এমন এক ধরনের গাছ যার বহু ভেষজ ঔষধি গুনাগুন রয়েছে। এছাড়াও এই গাছ বহু ক্ষেত্রে চিকিৎসাবিদ্যার কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে। প্রাচীন যুগ থেকেই চিকিৎসাবিদ্যায় এলার্জি, বিভিন্ন প্রদাহ, আর্থারাইটিস এ ধরনের বিভিন্ন সমস্যার ক্ষেত্রে বিছুটি পাতার ব্যবহার হয়ে আসছে। এছাড়াও বিছুটি পাতায় তৈরি চা শরীরের অনেক অসুস্থতা মোকাবিলায় সহায়তা করে। তাহলে আসুন আজকের আলোচনা থেকে জেনে নেওয়া যাক বিছুটি পাতার বেশ কয়েকটি ব্যবহার এবং এর উপকারিতা সম্মন্ধে.

Table of Contents

বিছুটি কি?

  • বিছুটি পাতার  ইংরেজি নাম: Nettle Leaf
  • বৈজ্ঞানিক নাম: Tragia involucrata – ত্রাজিয়া ইনভোলুক্রাতা) হলো ইউফোরবিয়াসেই পরিবারের একটি উদ্ভিদ.

 বিছুটি পাতার বিশেষত্ব কি?

এটি হলো সপূষ্পক উদ্ভিদ । এরা সবুজ উদ্ভিদ । এই গাছটির বা পাতার রস, পাতার গুড়ো প্রভৃতি যদি কোনো ক্রমে শরীরের অংশে লেগে যায় তবে চুলকোতে শুরু করে। যাবে এক ধরনের অ্যালার্জীর মতো। পরে শরীরের সেই স্থান ফুলে যায়, রস বের হয় এবং ব্যাথা করে।গাছটির কাণ্ড ও পাতা জুড়ে অতি সূক্ষ্ম লোমের মত ট্রাইকোম ভোরে থাকে। গাছের গায়ে কোনো ভাবে স্পর্শ করলে ট্রাইকোমের অগ্রভাগ ভেঙে যায় এবং এর ভেতর থেকে Histamine, Acetyl Choline, Serotonin সহ অন্যান্য রাসায়নিক পদার্থ নির্গত হয়। বিছুটি গাছ স্পর্শ করলেই যে হুল ফোঁটার মতো যন্ত্রণা অনুভূত হয়, তার জন্য এই রাসায়নিক পদার্থগুলোই দায়ী.

আমরা মোটামুটি জানি বিছুটি পাতা আমাদের শরীরে কোথাও লাগলে হঠাৎ চুলকানীর শেষ থাকে না অর্থাৎ ত্বকের ক্ষেত্রে অধিকাংশই এর এলার্জি প্রদাহ তৈরি করতে দেখা যায়। তবে প্রাচীনকাল থেকেই এটি ভেষজ ঔষধী হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে.

বিছুটি কোথায় জন্মায় ?

এই গাছ মূলত শীতকালীন জলবায়ুতে এবং আর্দ্রতা যুক্ত অঞ্চলে হয়ে থাকে। যে জন্য জঙ্গলে কিংবা ঝোপঝাড়ে বা নদীর ধারে কিংবা রাস্তার ধারে এই প্রজাতির গাছ দেখতে পাওয়া যায় । মূলত লাতিন শব্দ ‘ইউরো’ থেকে এর উৎপত্তি। যার অর্থ ‘পোড়া’। কারণ এই পাতার সাথে জ্বালাভাব অস্থায়ী সম্পর্কযুক্ত রয়েছে.

বিছুটি কোথায় পাওয়া যায়?

বিছুটি পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে যেমন ইতালি, নেপাল, মেক্সিকো, ভারত, চীন, রাশিয়া, নেদারল্যান্ডস, উত্তর আমেরিকা, ফ্রান্সের বিভিন্ন অঞ্চলে এই জাতীয় উদ্ভিদ গুলি আগাছা হিসেবে দেখা যায়। এই বিছুটি প্রজাতির গাছ গুলি মূলত ঝোপ-জঙ্গলে সব জায়গায় পাওয়া যায়। এই গাছগুলি আগাছা হিসেবে যেহেতু জন্মায় তাই একসাথে ঘন ভাবে এগুলো থাকে। যার ফলে এগুলো চারিদিকে ভরে গিয়ে এক প্রকার জঙ্গল সৃষ্টি হয়। এই গাছের পাতা কিংবা কান্ড শরীরের কোন অংশে লাগলে সেই জায়গা চুলকাতে থাকে এবং জ্বলতে থাকে। তবে এই পাতা দিয়েই ওষুধ তৈরি করা হয়, সেগুলো উদ্ভিদকে পোকামাকড় এর হাত থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। আসুন তাহলে জেনে নিন এই পাতার উপকারিতাগুলি.

বিছুটি পাতার উপকারিতা – Benefits of Nettle leaves In Bengali

বিছুটি পাতার উপকারিতা - Nettle Benefits in Bengali
বিছুটি পাতার উপকারিতা – Nettle Benefits in Bengali

বিছুটি পাতা জাতীয়  বিভিন্ন আগাছা গুলি আমাদের বহু ঔষধ তৈরীর ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়ে থাকে এবং আমাদের স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে এগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আসুন জেনে নিন কিভাবে এগুলি আমাদের স্বাস্থ্যের রক্ষায় সহায়তা করে।.

১. হৃদযন্ত্র এবং লিভারের সুস্থ রাখতে 

আমাদের শরীরের প্রধান দুটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো হৃদযন্ত্র এবং লিভার। এগুলিকে সুস্থ রাখার জন্য বয়স বাড়ার সাথে সাথে এর যথাযথ পরিচর্যা, খাদ্য ব্যবস্থার পরিবর্তন এবং শরীর চর্চা আমরা করে থাকি। তবে আপনি হয়তো জানেন না কিন্তু হার্ট এবং লিভারের সমস্যা হয়ে থাকলে বিছুটি পাতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে ২০১৮ সালে ইঁদুরের ওপর এক মাসের জন্য ১৫০ মিলিগ্রাম করে প্রতিদিন বিচুটি পাতার রস প্রদান করে দেখা গিয়েছে, এটি শরীরের রক্তের Lipids Profile কে উন্নত করতে সহায়তা করে।

এছাড়াও এই পাতার মধ্যে থাকা অন্যান্য উপাদান গুলি বাজারচলতি বহু ওষুধের তুলনায় শরীরে ভালোভাবে কাজ করে থাকে। বিছুটি পাতা শরীরে Antioxidant প্রদান করে থাকে, যার ফলে শরীরের ভারসাম্য ঠিক হয় এবং লিভার জনিত যেকোনো রোগের ঝুঁকি হ্রাস পায়। এছাড়াও সমীক্ষার ফলে দেখা গিয়েছে, Hypertension প্রতিরোধে এটি সহায়তা করে। যা আমাদের Cardio ব্যবস্থাকেও সুস্থ রাখতে সহায়তা করে.

. Osteoarthritis নিয়ন্ত্রণে 

বন্ধুরা অস্টিওআর্থারাইটিস এর মতন সমস্যাগুলিকে কম করে হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে বিছুটি পাতা। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বিছুটি গাছের পাতা Osteoarthritisএর ব্যথাকে কম করে শরীরের ভেতর প্রদাহজনক Hormones এর মাত্রা হ্রাস করে। মানব শরীরে গবেষণার ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, এটি শরীরে Anti Inflammatory যুক্ত হওয়ায় যেকোনো ধরনের ব্যথা কে কম করতে সহায়তা করে.

. মূত্রনালীর সংক্রমণ নিরাময়ে

মানব শরীরের মূত্রনালীর সংক্রমণ এর প্রভাব শরীরের অন্যান্য অংশে সমানভাবে লক্ষ্য করা যায়। যার ফলস্বরূপ, পেটে ব্যথা, পায়ে খিঁচুনি এই সমস্ত সমস্যা গুলি দেখা যায়। Prostate Gland হঠাৎ করে বৃদ্ধি পেলে সে ক্ষেত্রে মূত্রনালীতে সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া বার্ধক্যজনিত কারণে মূত্রতন্ত্র অনেক সময় তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। যার ফলস্বরূপ মূত্রনালীর সংক্রমণ দেখা যায়। এক্ষেত্রেও বিছুটি পাতার ব্যবহার এই রোগ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। মূলত এই গাছের মূলে থাকা উপাদানগুলি শরীরের ভেতরের কোষগুলোকে যথাযথভাবে সুস্থ করে তুলতে সহায়তা করে.

. স্কিন এর স্বাস্থ্য রক্ষায়

বন্ধুরা আমরা সকলেই জানি এই বিছুটি পাতা সরাসরি যদি ত্বকে লাগে সে ক্ষেত্রে এটি বিক্রিয়া করে ফেলে, যার ফলস্বরূপ Skin Allergies চুলকানির মতো সমস্যা দেখা দেয়। তবে পরোক্ষভাবে এটি ত্বকের বহু চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মূলত বিভিন্ন চর্ম রোগের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ঔষধি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। প্রাচীনকাল থেকেই চিকিৎসাশাস্ত্রের ব্যবহার আমরা দেখে আসছি। তবে বর্তমানে বিভিন্ন ঔষধি তৈরীতে এই গাছের বিভিন্ন অংশের নির্যাস ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে ত্বকের স্বাস্থ্য রক্ষার ক্ষেত্রে যে কোন ধরনের দাদ, হাজা, চুলকানি কিংবা ফুসকুড়ির সমস্যায় যে ঔষধ ব্যবহার করা হয় সেক্ষেত্রে অনেকগুলোতেই এটির উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়.

. চুলের বৃদ্ধিতে এবং মজবুত করতে

আমাদের প্রাচীনকাল থেকেই চুলের বৃদ্ধিকে বাড়িয়ে তুলতে Urticar প্রজাতির গাছের ব্যবহার হয়ে আসছে। এই উদ্ভিদ গুলির মধ্যে থাকা ভেষজ উপাদান গুলি চুলকে ভেতর থেকে সুস্থ ও সুন্দর করে তুলতে সহায়তা করে। এছাড়াও মানুষের চর্ম রোগ নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে। মাথার মধ্যে থাকা কোষগুলিকে উজ্জীবিত করে তোলে, যার ফলে এই গাছের পাতার রস যদি মাথায় লাগানো যায় সেক্ষেত্রে নতুন চুল গজানোর পাশাপাশি চুলের গোড়া শক্ত করে তুলতে সহায়তা করে.

. প্রোস্টেটের সমস্যায় বিছুটির ব্যবহার

আমাদের Prostate গ্রন্থির অত্যাধিক বৃদ্ধির ফলে এটি মূত্রনালীতে চাপ বাড়ায়, যার ফলে মূত্রতন্ত্র কে এটি অক্ষম করে তোলে। বয়স বাড়ার সাথে সাথে এই সমস্যা দেখা দিতে থাকে। ইঁদুরের ওপর করা গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বিছুটি পাতা প্রোস্টেট সংক্রান্ত সমস্যার উন্নতিতে সহায়তা করে। এই গাছগুলোর বিভিন্ন অংশ আমাদের শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে। এই গাছের শিকড়ে থাকা এক ধরনের উপাদান Aromatase কে বাধা দেয়, যা আমাদের শরীরে একটি Enzymes Testosterone কে Estrogen রূপান্তর করে। ইস্ট্রোজেন প্রোস্টেট এর সমস্যার জন্য দায়ী। এছাড়াও বিছুটি গাছের অংশগুলি আমাদের শরীরে মানব Cancer কোষগুলিকে ত্বরান্বিত করে, যার ফলে ক্যান্সারের কোষগুলি শরীরে বৃদ্ধি পায় না.

. জ্বর, শ্বাসকষ্ট এবং অ্যালার্জির উপশমে 

আমাদের শরীরে অ্যালার্জি মূলত পরিবেশ দূষণ, ধূলিকণা, হঠাৎ কোনো কিছুর গন্ধ অথবা খাবারে অসুবিধার কারণে হয়ে থাকে। যার ফলে অ্যালার্জি এমন আকার ধারণ করতে পারে যার থেকে জ্বর এবং শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা দেখা দেয়। অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় এমন কিছু খাবার আছে যা খেলে মানুষের শরীরে সহ্য হয় না। যার পরিপ্রেক্ষিতে অ্যালার্জির সমস্যা দেখা দেয় এমনকি  অনেক ওষুধ আছে যেগুলো খেলে শরীরে অ্যালার্জি সৃষ্টি হয়।

অ্যালার্জির সূচনা হিসেবে আমরা হাঁচি, চুলকানি, মাথাব্যাথা, শুকনো কাশি, ঘুম ঘুম ভাব এই সমস্ত উপসর্গ গুলো দেখতে পারি। হঠাৎ কোনও গন্ধ নাকে গেলে কিংবা ধুলাবালির কারণে অ্যালার্জি সৃষ্টি হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে বিছুটি পাতার মধ্যে থাকা Anti Inflammatory এবং Anti Allergic বৈশিষ্ট্য গুলি আমাদের শ্বাসকষ্ট কিংবা অ্যালার্জির চিকিৎসায় সহায়তা করে থাকে।

এর মধ্যে থাকা Nicotinamide, Sinfine এবং Astrol অ্যালার্জি দমনে সহায়তা করে। তবে অনেক ক্ষেত্রে এটি আবার বিরোধী কার্যকলাপও দেখা যায়। তবে যে কোনো Inflammation কমাতে এগুলি সাহায্য করে থাকে। তীব্র হাঁপানি, শ্বাসনালীর অ্যালার্জি রোগ গুলির ক্ষেত্রেও বিছুটি পাতা দিয়ে তৈরি ওষুধ ব্যবহার করে উপকারিতা পাওয়া গিয়েছে। এক্ষেত্রে এটি সরাসরি শরীরে কুপ্রভাব ফেললেও এটি পরোক্ষভাবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে.

. মাসিক প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে

মহিলাদের মাসিক প্রক্রিয়াকে যথাযথ ভাবে স্বাভাবিক পদ্ধতিতে করানোর জন্য এবং PCOS অর্থাৎ Polycystic Ovarian সিস্টের সমস্যা দূর করতে এবং জন্ম প্রক্রিয়াকে যথাযথ ভাবে সহজ করে তুলতে বিচুটি গাছের বিভিন্ন উপাদানগুলি থেকে ওষুধ তৈরি করা হয়। মূলত এগুলি শরীরে রক্তের পরিমাণকে যথাযথ এবং শরীরে প্রজনন ক্ষমতা কে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। এছাড়াও ডিম্বাশয় এর ভেতরে রক্তপাত কে নিয়ন্ত্রণ করে, যার ফলে ডিম্বাশয়ে Sist এর পরিমাণ কমে এবং প্রজনন ক্ষমতা স্বাভাবিক হয়ে ওঠে।

Ovarian সিস্টের সমস্যা থাকার কারণেই যথাযথভাবে মাসিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হলেই সে ক্ষেত্রে Ovari থেকে যেকোন সমস্যার উৎপত্তি হয়। যার ফলস্বরূপ পরবর্তী সময়ে প্রজনন ক্ষমতায় সমস্যা দেখা যায়। অধিকাংশ মহিলাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা দেখা যায়, যার ফলস্বরূপ সঠিক সময়ে সন্তান ধারণে অসুবিধা দেখা যায়। তবে PCOS এর সমস্যার ক্ষেত্রে বিছুটি, গোল মরিচ, পেঁয়াজ এ ধরনের আনাজ উপকার করে থাকে।

যা শরীরের ভেতরে রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না, যার ফলে শরীরে রক্ত যথাযথভাবে প্রবাহিত হলে সেক্ষেত্রে জমাটবদ্ধতার সমস্যা দূর হলে Uterus এর পেশীগুলি পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়ে ওঠে। কেন না রক্তপাত যথাযথ হলেই শরীরের ভেতরে থাকা প্রয়োজনীয় উপাদান গুলি মাসিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শরীর থেকে বেরিয়ে যেতে পারবে। এক্ষেত্রে তাই বিছুটি গাছের বিভিন্ন অংশগুলি দিয়ে তৈরি করা উপাদানগুলো শরীরের মাসিক চক্র কে যথাযথ ভাবে তৈরি করতে এবং PCOS এর সমস্যা দূরীকরণে সহায়তা করে.

. ক্ষত নিরাময়ে এবং প্রদাহ নিয়ন্ত্রণে

ক্ষত নিরাময়ের জন্য প্রয়োজনীয় Anti Inflammatory উপাদান গুলি বিছুটি পাতার মধ্যে রয়েছে। মূলত শরীরের কোষগুলোকে পুনর্গঠন করে শরীরের রক্ত সরবরাহ ব্যবস্থাকে পুনর্গঠন করতে বিছুটি পাতা গাছের থেকে তৈরী ওষুধ সহায়তা করে। তবে প্রাচীন যুগ থেকেই ক্ষত নিরাময়ের ক্ষেত্রে বিছুটি গাছের ওষুধ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। বিছুটি উপ গোত্রীয় গাছের ফুল এবং ফল বরাবরই তাদের সংবেদনশীলতা এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের জন্য প্রশংসা পেয়ে এসেছে।

এই গাছের পাতায় Anti Hemorrhagic প্রভাব রয়েছে। কেননা এটিতে প্রচুর পরিমাণে Minerals, Vitamins এবং Fatty Acid রয়েছে। যার ফলে যে কোনো ক্ষত নিরাময়ের ক্ষেত্রে এই গাছের উপাদান ব্যবহার করা হয়। যা রক্তপাত কে হ্রাস করার পাশাপাশি রক্ত জমাট করে শরীরে রক্ত তঞ্চনে সহায়তা করে। এই গাছের পাতা এবং অন্যান্য অংশগুলি শক্তিশালী Antioxidant, Anti Inflammatory Anti Allergic বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন হওয়ায় এগুলো ক্ষত নিরাময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে.

১০. রক্তচাপ (Blood Preser)নিয়ন্ত্রণে

বিছুটি সমগোত্রীয় বিভিন্ন গাছের পাতাগুলো শরীরে রক্তের Glucose এর মাত্রা নিয়ে বেশ কিছু আশাজনক প্রভাব দেখিয়েছে। তাই এগুলির মধ্যে উপস্থিত Anti Hipper Glysemic বৈশিষ্ট্যের কারণে Diabetes Mellitus এর চিকিৎসার ক্ষেত্রে ও বিছুটি পাতা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মূলত রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে রক্তকে শুদ্ধ করতে এটি সহায়তা করে থাকে.

১১. আলসার বা পেটের ক্ষত নিরাময়ে

আমরা দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকার ফলে কিংবা অধিক তেল-মসলাযুক্ত খাবার দীর্ঘদিন খাওয়ার ফলে পেটের ভিতর এক ধরনের ক্ষতের সৃষ্টি হয়। অনেক সময় ছোট ছোট ফুসকুঁড়ির মতন দেখা যায়। যা পেটে ব্যথার সৃষ্টি করে এবং শরীরকে রীতিমতো খারাপ করে তোলে। পেটের ভেতরে এ ধরনের ক্ষত নিরাময়ে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয় বিছুটি পাতা।

ইতিমধ্যেই আমরা জেনেছি যে কোন ধরনের ক্ষত নিরাময়ের ক্ষেত্রে কিংবা প্রদাহ নিয়ন্ত্রণে এটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে শরীরের ভেতরের কোষগুলিকে পুনরুদ্ধার করে, ক্ষত নিরাময় করে, সেখানে রক্ত সরবরাহকে পুনরুদ্ধার করতে সহায়তা করে। এই গাছের বিভিন্ন অংশে থাকা উপাদানগুলি শরীরের শক্তিশালী Antioxidant, Hepato Protective, Anti Inflammatory বৈশিষ্ট্য প্রদান করে থাকে। যা ক্ষত কে দ্রুত নিরাময়ে সহায়তা করে.

বিছুটি পাতার খাদ্যগুণ

আমরা ইতিমধ্যেই বিছুটি পাতার উপকারিতা সম্পর্কে জানলাম। এবার জেনে নিন এই পাতার খাদ্যগুণ কতখানি বিছুটি পাতার গাছে প্রচুর পরিমাণে Phytochemicals থাকে। এছাড়া এই গাছের পাতায় Carotene, Xanthophyll, Jaxanthin, লুটোক্সানথিনের মতন উপাদানগুলি রয়েছে। এর পাশাপাশি এমন কিছু Acid রয়েছে যার গুনাগুন মারাত্মক। এর পাশাপাশি বিছুটি গাছের পাতায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফোলেট, ভিটামিন এ, ভিটামিন কে, সাধারণ কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদান রয়েছে.

বিছুটি পাতার পুষ্টির মান

এক কাপ অর্থাৎ ৮৯ গ্রাম বিছুটি পাতার রসের মধ্যে রয়েছে :-

  • জল ৭৮.০৩ গ্রাম
  • শক্তি ৩৭ কেসিএল
  • ফসফরাস ৬৩ মিলিগ্রাম
  • পটাশিয়াম ২৯৭ মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন বি ৬ – ০.০৯২ মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন এ ৯০ মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন ই ১৭৯০ আই ইউ
  • প্রোটিন ২.৪১ গ্রাম
  • ফ্যাট ০.১০ গ্রাম
  • সুগার ০.২২ গ্রাম
  • ক্যালসিয়াম ৪২৮ মিলিগ্রাম
  • আয়রন ১.৪৬ মিলিগ্রাম
  • ম্যাগনেশিয়াম ৫১ মিলিগ্রাম

বিছুটি পাতা কিভাবে ব্যবহার করবেন ?

বিছুটি পাতার বহুমুখী ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। তবে এটি Herbal Tea হিসেবে তৈরি করে পান করা যেতে পারে। পরোক্ষভাবে ঔষধ হিসেবে এবং মলম হিসেবেও এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে বিছুটি গাছের পাতাকে শুকনো করে রেখেও খাওয়া যেতে পারে। দোকানে ওষুধ হিসেবেও কেনা যেতে পারে। মূলত Osteoarthritis এ আক্রান্ত রোগীরা মলম ব্যবহার করতে পারেন। তবে মাথায় রাখবেন এটি ব্যবহারে কিছু শর্ত আছে।

এলার্জির ক্ষেত্রে, দৈনিক ৬০০ মিলি গ্রাম বিছুটি গাছের শুকনো পাতা গ্রহণ করা যেতে পারে। এবং যাদের বর্ধিত প্রোস্টেট গ্রন্থির সমস্যা রয়েছে তারা দৈনিক ৩৬০ মিলিগ্রাম বিছুটি গাছের শিকড়ের অংশ গ্রহণ করতে পারেন। এগুলি অনেক দোকানে কিনতে পাওয়া যায়। এছাড়াও বিছুটি গাছের শুকনো পাতা এবং ফুলগুলো ভেষজ চা তৈরির ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ছাড়াও এই গাছের পাতা, ডাল পালা দিয়ে Soup হিসেবেও বানিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও এই গাছের পাতাগুলো যদি সহ্য হয় সে ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে চা করে খাওয়াটাই যথাযথ.

বিছুটি গাছের পাতা দিয়ে চা তৈরির পদ্ধতি

  • শুকনো বা টাটকা বিছুটি গাছের পাতা – ১ কাপ প্রায় ২৫০ মিলি
  • গরম জল – ১ থেকে ২ কাপ

কিভাবে তৈরি করবেন?

  1. একটি হাড়িতে ভালো করে জলটা ফুটিয়ে নিন.
  2. এবার ফুটন্ত জলের মধ্যে বিচুটি পাতা যোগ করুন.
  3. আঁচ বন্ধ করে দিয়ে ৫ থেকে ১০ মিনিট ঢেকে রাখুন.
  4. এরপর ১০ মিনিট বাদে ছেঁকে নিয়ে তাতে মধু যোগ করে খেয়ে নিন.

এক্ষেত্রে চিনি ব্যবহার না করা হলেই ভাল এবং গরম গরম পরিবেশন করুন.মূলত এর স্বাদ একটু তেতো ধরনের হওয়ায় এতে মধু যোগ করতে পারেন। এছাড়াও এই গাছের পাতা শাক হিসেবে ব্যবহার করেও খেতে পারেন। তবে এটি ব্যবহারের আগে অবশ্যই ভালো করে ধুয়ে নেবেন। কেননা এগুলো বুনো উদ্ভিদ হওয়ায় এর কিন্তু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে.

বিছুটি পাতার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া – Side Effects of Nettle leaves In Bengali

আমরা জানি যে প্রত্যেকটা উপাদানেরই উপকারিতার পাশাপাশি অধিক ব্যবহারের ফলে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। তবে এক্ষেত্রে আমরা শুরু থেকেই বিচুটি পাতাকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াযুক্ত উপাদান হিসেবে আমরা জানি। যদিও আজকের নিবন্ধে আমরা জেনেছি, বিছুটি পাতার উপকারিতা দিকগুলি। তবে খুব বেশি মারাত্মক পার্শপ্রতিক্রিয়া না থাকলেও বেশকিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থাকে.

  1. যদি বিছুটি পাতার সাথে অন্য কোনো রাসায়নিক বিক্রিয়া করে যেমন Acetyl, Colin Histamine, Serotonin Formic অ্যাসিড এই ধরনের যৌগ গুলোর সংস্পর্শে এলে জ্বালা সৃষ্টি হয় দেখা গিয়েছে.
  2. এছাড়াও গর্ভবতী মহিলা যদি চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই এগুলি গ্রহণ করে থাকেন তবে সে ক্ষেত্রে বিপদ ঘটে যেতে পারে.
  3. যে কারণে রান্না করা বা শুকিয়ে নিয়ে বিছুটি পাতা সেবন করাই যথাযথ.
  4. কেননা এটি তাজা খেলে এর মধ্যে বেশ কিছু উপাদান থাকে। যা ত্বকে বিক্রিয়ার সৃষ্টি করে এবং যার ফলে ত্বকে জ্বালা এবং চুলকানির মত সমস্যাগুলি দেখা যায়.
  5. বিছুটি পাতার শিকরের সংস্পর্শে এলে অনেকেরই শরীরে Gই ট্রাকের ব্যাঘাত ঘটে যার ফলস্বরূপ প্রচুর ঘাম এবং অ্যালার্জি হতে পারে.
  6. এছাড়াও গাছ থেকে বিছুটি পাতা তোলার সময় অনেকের হাতে চুলকানি ফুসকুড়ি দেখা দিতে পারে.

বিছুটি পাতা কিভাবে আমাদের শরীরে উপকার করে, বিভিন্ন প্রদাহ কমাতে রক্তে শর্করার পরিমাণ কম করতে, রক্তচাপ পরিচালনায়, চুলের বৃদ্ধিতে, হৃদযন্ত্র এবং লিভারের স্বাস্থ্য রক্ষায় কিভাবে সহায়তা করে ইতিমধ্যে আজকের নিবন্ধ থেকে আমরা তা জেনে নিয়েছি। বিছুটি পাতার কি কি উপকারিতা এবং কি কি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে তার সবকটি সম্পর্কে একটা সম্যক ধারণা পেয়েছি। সুতরাং এবার তাহলে বিচুটি পাতা আপনি আপনার প্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহার করতেই পারেন.

আমাদের শেষ কথা

তাই বন্ধুরা, আমি আশা করি আপনি অবশ্যই একটি Article পছন্দ করেছেন (বিছুটি পাতার উপকারিতা, ব্যবহার এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া – Nettle Benefits, Uses and Side Effects in Bengali)। আমি সর্বদা এই কামনা করি যে আপনি সর্বদা সঠিক তথ্য পান। এই পোস্টটি সম্পর্কে আপনার যদি কোনও সন্দেহ থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই নীচে মন্তব্য করে আমাদের জানান। শেষ অবধি, যদি আপনি Article পছন্দ করেন (বিছুটি পাতার উপকারিতা), তবে অবশ্যই Article টি সমস্ত Social Media Platforms এবং আপনার বন্ধুদের সাথে Share করুন।


Spread the love

Leave a Comment

error: